মঙ্গলবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে ইইউর বৈঠক

ভোরের সংলাপ ডট কম :
জুলাই ১৬, ২০২৩
news-image

নির্বাচনপূর্ব পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে আসা ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) প্রতিনিধি দল দেশের সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করেছেন। সেখানে তারা নির্বাচনী পরিবেশ সম্পর্কে জানতে চেয়েছে। সুশীল সমাজের সদস্যরা তাদের নিজ নিজ পর্যবেক্ষণ জানিয়েছেন।রোববার (১৬ জুলাই) রাজধানীর গুলশানে ইইউ অফিসে প্রথম দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক স্টাডিজের (বিআইআইএসএস) গবেষণা পরিচালক ডা. মাহফুজ কবিরের সঙ্গে।

দ্বিতীয় দফায় প্রতিনিধি দল মানবাধিকারকর্মী অ্যাডভোকেট আদিলুর রহমান খানের সঙ্গে বৈঠক করে। এছাড়া বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিপিডির সঙ্গেও বৈঠকে বসে ইইউ প্রতিনিধি দল। এদিন সুজন সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদারের সঙ্গেও বৈঠক হয়েছে ইইউ প্রতিনিধিদের।বৈঠক শেষে ড. মাহফুজ কবির সাংবাদিকদের বলেন, ইইউ প্রতিনিধিদল বর্তমান নির্বাচনের পরিবেশ সম্পর্কে খোঁজখবর নিয়েছে। আমি তাদের বলেছি, এখন রাজনৈতিক পরিস্থিতি শান্তি ও সহিংসতামুক্ত। নির্বাচনের আগে ইইউর উচিত একটি পর্যবেক্ষকদল পাঠানো।

বৈঠক শেষে আদিলুর রহমান খান বলেন, মানবাধিকারকর্মীদের নামে মামলা দিয়ে, মানবাধিকার সংগঠনের রেজিস্ট্রেশন বাতিল করে ও মানবাধিকার লঙ্ঘন করে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়, এটাই আমি প্রতিনিধিদলকে জানিয়েছি।বদিউল আলম মজুমদার বলেন, বর্তমান ব্যবস্থায় অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। এটা হবে কি না সন্দেহ আছে। সুষ্ঠু ও সুন্দর নির্বাচন জাতির আশা- সেটিই তাদের জানিয়ে এসেছি।

তবে ইইউ প্রতিনিধিদলের সঙ্গে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সংলাপ কিংবা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ইস্যুতে কোনো আলোচনা হয়নি বলে জানান সুশীল সমাজের এই প্রতিনিধি।এর আগে গতকাল শনিবার আনুষ্ঠানিকভাবে দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনায় বসে ইইউর প্রাক নির্বাচনী পর্যবেক্ষক দল। প্রথমেই তারা বসে বিএনপির সঙ্গে। এরপর যথাক্রমে জাতীয় পার্টি, আওয়ামী লীগ, জামায়াতে ইসলামী ও এবি পার্টির সঙ্গে আলোচনা করে।

বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে গত ৮ জুলাই ঢাকা সফরে এসেছে ইইউ প্রাক-নির্বাচনী পর্যবেক্ষক প্রতিনিধি দল। আগামী ২৩ জুলাই পর্যন্ত প্রতিনিধি দলের সদস্যরা ঢাকায় অবস্থান করবেন। সফরকালে তারা সরকারি-বেসরকারি প্রতিনিধি, বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ ও গণমাধ্যমের সঙ্গে মতবিনিময় করছেন।

তারা নির্বাচনী পরিবেশ যাচাই করছেন। একই সঙ্গে আগামী জাতীয় নির্বাচনে ইইউ কোনো পর্যবেক্ষক পাঠাবে কি না প্রতিনিধিদল সে বিষয়ে সুপারিশ করবে। তাদের সুপারিশের ওপর ভিত্তি করেই ইইউ এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে।

bhorersanglap

আরও পড়তে পারেন