শনিবার, ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

ফিট থাকতে রোজ খান ঢ্যাঁড়শ ভেজানো পানি

ভোরের সংলাপ ডট কম :
জুলাই ১৬, ২০২৩
news-image

বাঙালির রান্নাঘরের অন্যতম প্রধান সবজি হলো ঢ্যাঁড়শ। ঢ্যাঁড়শ যেমন খেতে সুস্বাদু তেমনি রান্না করাও সহজ এবং এতে রয়েছে নানা ধরণের পুষ্টিগুণ। ঢ্যাঁড়শ স্বাস্থ্যের জন্যও উপকারী। ঢ্যাঁড়শে থাকা পুষ্টি উপাদানসমূহ রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে ও হার্টের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। এতে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ও প্রাকৃতিক অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল যৌগসমূহ। ২৪ ঘণ্টা ঢ্যাঁড়শ পানিতে ভিজিয়ে রেখে তা পান করলে শরীরের নানা উপকার হয়। ঢ্যাঁড়শে মিউসিলেজ, গ্যালাকটোজ ও গ্যালাক্টরনিক অ্যাসিডসহ স্বাস্থ্যকর শর্করা আছে। যা গ্যাস্ট্রিকের জ্বালা ও প্রদাহের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দেয়। এই সবজি ভেজানো জলে দ্রবণীয় মিউকিলেজ থাকে। এছাড়াও এতে থাকে ফেনোলিক যৌগ ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। বিশেষজ্ঞদের মতে, ঢ্যাঁড়শে থাকা বিভিন্ন ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ পানিতে সহজেই দ্রবণীয় হয়। রান্না করলে সবটুকু পুষ্টিগুণ মেলে না।

ঢ্যাঁড়শের স্বাস্থ্য উপকারিতা – ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে – ঢ্যাঁড়শ ভেজানো পানিতে প্রচুর পরিমাণে পলিফেনল ও ফ্ল্যাভোনয়েড পাওয়া যায় যা রক্তে শর্করার মাত্রা কমায় ও ইনসুলিন নিঃসরণ বাড়ায়। অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভালো উৎস – ঢ্যাঁড়শ ভেজানো পানিতে শক্তিশালী প্রাকৃতিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে যেমন- ফেনোলিক যৌগ, ফ্ল্যাভোনয়েড ও ভিটামিন সি। এসব অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের ক্ষতি প্রতিরোধ করে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় – ঢ্যাঁড়শ ভেজানো পানিতে পাওয়া শর্করা পলিস্যাকারাইড (চিনি) রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় ও জীবাণুর বিরুদ্ধে লড়াই করে। হার্ট ভালো রাখে – ঢ্যাঁড়শ ভেজানো পানিতে বায়োঅ্যাকটিভ যৌগ আছে, যা রক্তে উচ্চতর লিপিড (চর্বি) এর মাত্রা কমাতে পারে। কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, ঢ্যাঁড়শ ভেজানো পানির নির্যাস বিভিন্ন লিপিড (কোলেস্টেরল, ট্রাইগ্লিসারাইড ও এলডিএল) ও এথেরোজেনিক সূচক (কার্ডিওভাসকুলার ঝুঁকির একটি পরিমাপ) কমিয়েছে। ঢ্যাঁড়শের নির্যাস রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। এটি এথেরোস্ক্লেরোসিসের মতো হৃদরোগের ঝুঁকি কমায় ।

bhorersanglap