বৃহস্পতিবার, ৬ই আগস্ট, ২০২০ ইং

স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে হাট বসাতে হবে

ভোরের সংলাপ ডট কম :
জুলাই ১১, ২০২০
news-image

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে কোরবানির পশু বেচাকেনার জন্য করোনা প্রতিরোধে বৃহৎ পরিসরে লোকসমাগম কমিয়ে হাট আয়োজন করার আহ্বান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

আজ শনিবার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন কোরবানির পশু অনলাইনে বিক্রির প্লাটফর্ম ডিএনসিসি ডিজিটাল হাট’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিয়ে তিনি এই আহ্বান জানান।এ সময় স্থানীয় সরকারমন্ত্রী, ডিজিটাল হাট থেকে প্রথম কোরবানির পশু ক্রয় করে অনলাইনে কেনাবেচারও উদ্বোধন করেন।

মন্ত্রী বলেন, শহর অঞ্চল ছাড়াও গ্রামগঞ্জে একটি বা দুইটি জায়গায় কোরবানির পশু বেচাকেনা করার জন্য নির্ধারণ না করে একটি ওয়ার্ডে বা ইউনিয়নে বিস্তৃত স্থানে আয়োজন করলে করোনা সংক্রমণের বিস্তার রোধে ভূমিকা রাখবে। এতে করে একদিকে যেমন পশু কেনা বেচার ওপর কোনো প্রভাব পড়বেনা অন্যদিকে সাধারণ মানুষকে করোনার হাত থেকে রক্ষা করা সম্ভব হবে।

কোরবানির পশুর বেচাকেনার জন্য যেখানেই হাট বসানো হোকনা কেন সেখানে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্বসহ সরকারের অন্যান্য নির্দেশনা মেনেই বসাতে হবে এবং এ লক্ষ্যে তার মন্ত্রণালয় একটি প্রাথমিক বৈঠক করেছে বলেও উল্লেখ করেন মন্ত্রী।

যেসব এলাকায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেশি বা যে এলাকাগুলোকে হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে সেসব এলাকায় পশুর হাট বসানো বর্জন করার আহ্বান জানান মো. তাজুল ইসলাম।

করোনা সংকটে ডিজিটাল পদ্ধতিতে গবাদি পশুকেনাবেচার গুরুত্ব তুলে ধরে এটি দেশে নতুন মাত্রা যোগ করবে জানিয়ে মন্ত্রী আশা প্রকাশ করে বলেন, করোনার সংকট থেকে মুক্তি হওয়ার পরেও অনলাইনে গবাদি পশুছাড়াও বিভিন্ন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাবেচা অব্যাহত থাকবে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী অনলাইনে কেনাবেচায় লেন-দেন, পণ্যের মানসহ বেশকিছু চ্যালেঞ্জের কথা উল্লেখ করে বলেন, এই প্লাটফর্মে বেচাকেনার জন্য সাধারণ মানুষের আস্থা নিশ্চিত করার বিকল্প নেই।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, ঢাকার বিভাগীয় কমিশনার মুস্তাফিজুর রহমান, এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম প্রমুখ অনলাইনে অংশগ্রহণ করেন।