বুধবার, ৫ই আগস্ট, ২০২০ ইং

পৌরসভার ১০ মেয়র, ১৭ কাউন্সিলর করোনায় আক্রান্ত

ভোরের সংলাপ ডট কম :
জুন ১৯, ২০২০
news-image

পৌরসভার ১০ জন মেয়র, ১৭ জন কাউন্সিলর এবং ৬৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে তিনজন কাউন্সিলর এবং একজন কর্মচারী মারা গেছেন।

শুক্রবার (১৯ জুন) বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা গেছে। পৌরসভার কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত ও নিহত কর্মীদের ক্ষতিপূরণের আওতায় আনতে সরকারের কাছে দাবিও জানিয়েছে অ্যাসোসিয়েশন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মাঠ পর্যায়ে সরাসরি জনসেবায় নিয়োজিত। করোনা মোকাবিলায় লকডাউনসহ যাবতীয় জনসচেতনতামূলক কাজে প্রশাসনকে সহযোগিতা করছে পৌরসভার জনপ্রতিনিধি, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনগণের সার্বিক সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তারা।

এতে বলা হয়, পৌরসভার যারা আক্রান্ত হচ্ছেন বা মারা যাচ্ছেন তাদের ব্যাপারে সরকারের কিংবা স্থানীয় সরকার বিভাগের কোনো পদক্ষেপ এখনও দেখা যায়নি। এতে পৌরসভার জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝে চরম হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হচ্ছে। তাই উপ-শহরের কোটি কোটি মানুষের সেবার মান সচল রাখার স্বার্থে অবিলম্বে স্থানীয় সরকার বিভাগসহ অর্থ বিভাগকে এ ব্যাপারে কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করার জন্য দেশের ৩২৮টি পৌরসভার পক্ষ থেকে জোরালো দাবি জানানো হচ্ছে।

আক্রান্ত ১০ মেয়র

গফরগাঁও পৌরসভার এস এম ইকবাল হোসেন সুমন, পটুয়াখালী পৌরসভার মহিউদ্দিন আহাম্মেদ, দাউদকান্দি পৌরসভার নাইম ইউছুফ, কক্সবাজার পৌরসভার মো. মুজিবুর রহমান, চন্দনাইশ পৌরসভার মাহবুবুল আলম, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার মো. মিজানুর রহমান, ভেড়ামারা পৌরসভার শামিমুল ইসলাম সানা, মীরকাদিম পৌরসভার শহিদুল ইসলাম শাহীন, ধুনট পৌরসভার এ জি এম বাদশাহ এবং কালকিনি পৌরসভার মেয়র এনায়েত হোসেন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

আক্রান্ত ১৭ কাউন্সিলর

দাউদকান্দি পৌরসভার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ফারুক প্রধান, দাউদকান্দি পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মো. সালাউদ্দিন, কক্সবাজার পৌরসভার ১০ নম্বর ওয়ার্ডের মো. সালাউদ্দিন, কক্সবাজার পৌরসভা ২ নম্বর ওয়ার্ডের মিজানুর রহমান, রাজৈর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের বাদল মাতুব্বর, দাগনভূঞা পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের জিয়াউল হক, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের মফিজুর রহমান এবং পটুয়াখালী পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের নিজামুল হক, দাগনভূঞা পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মহিউদ্দিন জুয়েল, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মো. সাইফুল ইসলাম শাহীন ও ১ নম্বর ওয়ার্ডের মো. মোকলেস মিয়া, নওয়াপাড়া পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মো. মিজানুর রহমান, চৌমুহনী পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মো. আনোয়ার হোসেন এবং কুমারখালী পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের মো. মাহাবুবুল আলম বাবুও প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

শ্রীমঙ্গল পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের মো. আব্দুল আহাদ, কালিয়াকৈর পৌরসভার ৭, ৮, ৯ সংরক্ষিত আসনের মোসা. হাজেরা বেগম এবং কবিরহাট পৌরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের আনোয়ার হোসেন আনোয়ার করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত যারা

সিরাজগঞ্জ পৌরসভার টিকাদানকারী নিপা খাতুন, ফরিদা খাতুন ও সহকারী কর আদায়কারী মো. আতিকুল ইসলাম, দাউদকান্দি পৌরসভার মিন্টু মিয়া, আড়াইহাজার পৌরসভার এস এম রাজু, চৌমুহনী পৌরসভার সাবেরা সুলতানা, চকোরিয়া পৌরসভার এমএলএসএস সাহাবুদ্দিন, ভাংগা পৌরসভার সড়ক বাতি পরিদর্শক ওমর শরীফ ও টিকাদানকারী মো. মিজানুর রহমান, মীরকাদিম পৌরসভার প্রধান সহকারী মুহাম্মদ আবদুর রব, পাম্পচালক মো. আল আমীন, টিকাদানকারী সুব্রত চন্দ্র পাল, কর নির্ধারক মো. গুলজার হোসেন, বিলক্লার্ক আমিনুল ইসলাম, পাম্প চালক মো. তাফাজ্জল, জিপচালক মো. শাজাহান এবং লাইসেন্স ইন্সপেক্টর মো. শামসুল আলম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

এছাড়া আক্রান্ত হয়েছেন- কক্সবাজার পৌরসভার সহকারী কর নির্ধারক মো. মহিউদ্দিন মহিন, ধামরাই পৌরসভার পরিচ্ছন্নকর্মী লিমা আহাম্মেদ, কালিয়াকৈর পৌরসভা কার্যসহকারী মো. নাসিরুল হাসান নাননু, ফরিদপুর পৌরসভার মো. রাসেল আলী, মনোহরদী পৌরসভার অফিস সহকারী নিলুফা আক্তার, পটুয়াখালী পৌরসভার ড্রাইভার মো. মাসুদ, চৌমুহনী পৌরসভার কার্যসহকারী টিপু সুলতান, চন্দনাইশ পৌরসভার অফিস সহায়ক মো. শহীদুল ইসলাম, সীতাকুন্ড পৌরসভার টিকাদান সুপারভাইজার নিজামউদ্দিন এবং আড়াইহাজার পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী সাফায়েত সাদীর শরীফ, পিরোজপুর পৌরসভার টিকাদানকারী জামিউল খান, মীর্জাপুর পৌরসভার গার্ভেজ ট্রাক চালক তানভীর, ভৈরব পৌরসভার সহ-কর নির্ধারক আবুল কালাম, কক্সবাজার পৌরসভার স্বাস্থ্য সহকারী আব্দুর রহিম, টেকনাফ পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারী রবিউল ইসলাম, জীবননগর পৌরসভার অফিস সহায়ক মুজিবুর রহমান, শাহারাস্তি পৌরসভার পৌর-সচিব তোফায়েল আহাম্মদ, চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার সহকারী লাইসেন্স পরিদর্শক মো. লোকমান হোসেন, চকোরিয়া পৌরসভার অফিস সহায়ক আব্দুল হামিদ, জীবননগর পৌরসভার অফিস সহায়ক মজিবুর রহমান, দুপচাচিয়া পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারী শাহজাহান সিরাজ, মহেশখালী পৌরসভার বাজার পরিদর্শক আবু তাহের, কেন্দুয়া পৌরসভার সহ-কর নির্ধারক সুমন কুমার বণিক, লালমোহন পৌরসভার বিল ক্লার্ক মো. নজরুল ইসলাম এবং জামালপুর পৌরসভার বাজার পরিদর্শক আরিফ মাহমুদ কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন।

আক্রান্তদের মধ্যে আরও আছেন- কক্সবাজার পৌরসভার পাম্প চালক আনসারুল হক, কালিয়াকৈর পৌরসভার উচ্চমান সহকারী আ. সবুর মোল্লা, কালিয়াকৈর পৌরসভার অফিস সহায়ক হেলাল উদ্দিন, কেন্দুয়া পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মাহমুদুল ইসলাম জুয়েল, সোনারগাঁও পৌরসভার উচ্চমান সহকারী আহাম্মদ হোসেন, সেনবাগ পৌরসভার উচ্চমান সহকারী এ বি এম মহসিন, মনোহরদী পৌরসভার স্বাস্থ্য সহকারী হালিমা আক্তার, ছেংগারচর পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী হাজী আবুল আনছার, সাভার পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারী আবুল আউয়াল সাদী, বেতাগী পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো. জসীম উদ্দিন, ছাতক পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারী যুবরাজ চৌধুরী শরীফ, কম্পিউটার অপারেটর আসাদুজ্জামান রতন, জিপচালক আব্দুল মালিক রানা, অফিস সহায়ক দীপ্তবণিক ও গার্ভেজ ট্রাক চালক কৃতেষ দাস, গেবিন্দগঞ্জ পৌরসভার স্বাস্থ্য সহকারী আনোয়ারা আফরোজ লাবনী, মীরসরাই পৌরসভার মো. মাসুম, কালকিনি পৌরসভার অ্যাকাউন্টস অফিসার রনজীত কুমার সরকার, কালকিনি পৌরসভার উপ-সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) এস এম লুৎফর রহমান রানা, কুয়াকাটা পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী মো. সাজেদুল আলম, আড়াইহাজার পৌরসভার অফিস সহায়ক মো. ফারুক, উল্লাপাড়া পৌরসভা পরিচ্ছন্নকর্মী মো. আব্দুল আলীম এবং ভৈরব পৌরসভা প্রধান সহকারী মো. আল আমীন।

আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন নয় জন। এছাড়া সেনবাগ পৌরসভার নৈশপ্রহরী জয়নাল আবেদীন ফকির মারা গেছেন বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন