রবিবার, ১লা সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

দলবদলে রেকর্ড ভাঙতে যাচ্ছে রিয়াল মাদ্রিদ

ভোরের সংলাপ ডট কম :
মে ২৫, ২০১৯
news-image

রক্তক্ষরণের এক মৌসুম শেষ করেছে রিয়াল মাদ্রিদ। আসছে গ্রীষ্ম তাই চরম ব্যস্ত থাকতে হবে তাদের। এমন সমস্যায় অবশ্য আগেও পড়েছে মাদ্রিদ জায়ান্টরা। প্রতিবারই আবার উতরে গেছে। সেই উতরে যাওয়ার পেছনে ছিল বড় অঙ্কের বিনিয়োগ। এবারও সেই পথে হাঁটতে যাচ্ছে তারা। সেটা আবার আগের সব রেকর্ড ভেঙে।

চরম বাজে অবস্থা থেকে ক্লাবকে উদ্ধার করতে ২০০৯ সালে ২৫৪ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, করিম বেনজেমা ও কাকাকে কিনে ছিলেন সভাপতি ফ্লোরেন্টিনো পেরেজ। দলবদলের এবারের খরচ আগের অঙ্ক ছাড়িয়ে অনেক বেশি পরিমাণে দাঁড়াবে।

৪৫ মিলিয়নে রদ্রিগো ও ৫০ মিলিয়নে মিলিটাওকে সই করিয়ে এরই মধ্যে ৯৫ মিলিয়ন ইউরো খরচ করে ফেলেছে রিয়াল। তবে আরও বেশি অর্থ খরচের পথ তারা তৈরি করে রেখেছে।

এডেন হ্যাজার্ডকে ১০০ মিলিয়ন ইউরোর নিচে সই করাতে পারবে না রিয়াল। বেলজিয়ান তারকা বার্নাব্যুতে পৌঁছাতে পৌঁছাতে সেই খরচ দাঁড়াবে অন্তত ১৯৫ মিলিয়নে।

শুধু হ্যাজার্ড নয়, লস ব্লাঙ্কোসরা দলে নেয়ার চেষ্টা করছে বসনিয়া ও হার্জেগোভিনার স্ট্রাইকার লুকা জোভিচকেও। এইনট্রাক্ট ফ্রাঙ্কফুর্টের আক্রমণভাগের এ খেলোয়াড়কে কিনতে অন্তত ৬০ মিলিয়ন খসাতে হবে রিয়ালকে। ফলে হ্যাজার্ড-জোভিচকে নিতেই খরচ হবে ২৫৫ মিলিয়ন ইউরো। যা ২০০৯ সালের ২৫৪ মিলিয়ন ইউরোকে ছাড়িয়ে যাবে।

রিয়ালের খরচের খাতা যে এখানেই শেষ হবে, তা হলফ করে বলা যাচ্ছে না। কারণ, লেফট-ব্যাকে একজন দক্ষ সেনার জন্য প্রায় পাগল হয়ে আছেন কোচ জিনেদিন জিদান। যেখানে নাম শোনা যাচ্ছে ফারল্যান্ড মেন্ডির। অলিম্পিক লিঁওতে খেলা ফরাসি তরুণকে দলে নিতে চাইলে ঝাড়তে হবে ৩০ মিলিয়ন ইউরো।

এছাড়া রিয়ালের রাডারে আছেন পল পগবা, যিনি আবার নিজেই জিদানকে দলে নিতে অনুরোধ করেছেন। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড তারকাকে দলে নিতে চাইলে ১৪০ মিলিয়নের কমে হবে না। পগবাকে না নিলে তার বিকল্প হিসেবে যাকে ভাবা হচ্ছে, টটেনহ্যাম হটস্পারের সেই সুইডিশ মিডফিল্ডারকেও কিন্তু সস্তায় পাবে না রিয়াল।

এত নামের আড়ালে যে আরও একজন আছেন, তিনি নেইমার। বার্সেলোনার সাবেক ও পিএসজির বর্তমান তারকা বার্নাব্যুতে এলে একাই ছাড়িয়ে দেবেন ২০০৯ সালের ২৫৪ মিলিয়নের রেকর্ড।